আফগানিস্তানের বিপক্ষে হাম্বানটোটায় অনুষ্ঠিত প্রথম ওয়ানডেতে ৯৪ বলে ৬১ রানের দুর্দান্ত পারফরম্যান্সের পর আইসিসি ওয়ানডে র ্যাঙ্কিংয়ে তৃতীয় স্থানে উঠে এসেছেন ইমাম-উল-হক।

মোট ৭৫২ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে ইমাম বর্তমানে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকার রাসি ভ্যান ডার ডুসেন, যিনি ৭৭৭ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে আছেন। আন্তর্জাতিক ওয়ানডে ক্রিকেটে ইমামের ১৭তম হাফ সেঞ্চুরির পর এই অগ্রগতি। উল্লেখিত খেলায় মাত্র দুই রান করে পঞ্চম স্থানে নেমে যাওয়া ফখর জামানকে টপকে পঞ্চম স্থানে নেমে গেছেন তিনি।

যদিও বাবর আজম ৮৮০ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে তালিকার শীর্ষে রয়েছেন, তবে শূন্য রানে আউট হওয়ার পরে তার রেটিং ছয় পয়েন্ট হ্রাস পেয়েছে। ভারতের শুভমান গিল ৭৪৩ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে চতুর্থ স্থানে রয়েছেন এবং পাকিস্তানের ফখর পঞ্চম স্থানে রয়েছেন। আফগানিস্তানের বিপক্ষে ২১ রানের ইনিংস খেলে ইমাম ও ফখরের সতীর্থ মোহাম্মদ রিজওয়ান ব্যাটসম্যানদের তালিকায় তিন ধাপ এগিয়ে ৫৮তম স্থানে উঠে এসেছেন।

পেস বোলিংয়ের অসাধারণ নৈপুণ্যে হারিস রউফ আফগানিস্তানকে আক্রমণ ের নেতৃত্ব দেন এবং ক্যারিয়ারসেরা পাঁচ উইকেট অর্জন করেন, যা প্রথম ওয়ানডেতে পাকিস্তানের ১৪২ রানের দুর্দান্ত জয়ে অবদান রাখে।

রউফের ৬.২ ওভারে ১৮ রানে ৫ উইকেট ের অসাধারণ পরিসংখ্যান আফগানিস্তানকে ৫৯ রান করতে বাধ্য করে, যার ফলে তাদের দ্বিতীয় সর্বনিম্ন ওয়ানডে স্কোর ১৯.২ ওভারে অর্জিত হয়। এই অসাধারণ কৃতিত্বের ফলে রউফ ওয়ানডে বোলারদের র ্যাঙ্কিংয়ে ৩৬ তম স্থানে উঠে এসেছেন, যা সাত ধাপ উল্লেখযোগ্য উন্নতি চিহ্নিত করেছে। তদুপরি, তার রেটিং পয়েন্ট সর্বকালের সর্বোচ্চ 522 এ পৌঁছেছে, যা তার ক্যারিয়ারের সেরা হিসাবে দাঁড়িয়েছে।

২০২১ সালে বার্মিংহামে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে রউফের আগের সেরা পারফরমেন্স ছিল ৪/৬৫।