শ্রীলঙ্কা ও বাংলাদেশের মধ্যকার বহুল প্রত্যাশিত এই ম্যাচটি ২০২৩ সালের এশিয়া কাপের যাত্রা শুরু করবে। ইনজুরিতে জর্জরিত এবং সাম্প্রতিক দুর্বল ওয়ানডে পারফরম্যান্সকে অতিক্রম করার চেষ্টায় থাকা উভয় দলই জয়ের সাথে তাদের অভিযান শুরু করতে প্রস্তুত।

২০২২ সালের টি-টোয়েন্টি আসরের বর্তমান এশিয়া কাপ চ্যাম্পিয়ন শ্রীলংকা এই সংস্করণকে সামনে রেখে বেশ কয়েকটি ব্যর্থতায় জর্জরিত। ইনজুরি এবং কোভিড-১৯ সংক্রমণের কারণে তাদের স্কোয়াড ঘোষণা ব্যাহত হয়েছে। ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গা, দুশমন্ত চামিরা, লাহিরু কুমারা এবং দিলশান মধুশাঙ্ক চোটের কারণে মাঠের বাইরে রয়েছেন। ২০২৩ সালে ভারতের (০-৩) এবং নিউজিল্যান্ডের (০-২) কাছে পরাজয় তাদের জয়কে ছাপিয়ে গেছে।

পাথুম নিসাঙ্কা, দিমুথ করুনারত্নে এবং চরিথ আসালঙ্কার ধারাবাহিক ফর্মের উপর শ্রীলঙ্কার ব্যাটিং ভাগ্য অনেকটাই নির্ভর করবে। অধিনায়ক দাসুন শানাকার অবদান গুরুত্বপূর্ণ হবে, বিশেষ করে ভারতের বিপক্ষে সেঞ্চুরির পর। বেশ কয়েকজন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব ছাড়াই বোলিং ইউনিট উল্লেখযোগ্য প্রভাব ের জন্য মাহিশ থিক্সানা এবং কাসুন রাজিথার দিকে তাকিয়ে থাকবে।

তামিম ইকবাল, এবাদত হোসেন ও লিটন দাসের মতো গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড়রা ইনজুরির কারণে মাঠের বাইরে থাকায় বাংলাদেশও চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে। যাইহোক, স্পটলাইট তাদের স্বতন্ত্র অবদানকারীদের উপর। অধিনায়ক সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, নাজমুল হোসেন শান্ত ও তৌহিদ হৃদয় ব্যাট হাতে তাদের দক্ষতা দেখিয়েছেন। মুস্তাফিজুর রহমান, শরিফুল ইসলাম ও তাসকিন আহমেদের বোলিং ত্রয়ী বেশ কয়েকবার উজ্জ্বল হয়েছে, তবে শক্তিশালী প্রতিপক্ষের বিপক্ষে তাদের এগিয়ে যেতে হবে।

যখন দুটি দল মুখোমুখি হয়, তখন তাদের দৃষ্টি একটি কৌশলগত জয়ের দিকে স্থির হয়, এটি জেনে যে এই লড়াইয়ে একটি জয় অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ‘বি’ গ্রুপে আফগানিস্তানের বিপক্ষে আসন্ন চ্যালেঞ্জ সম্পর্কে বাংলাদেশ ও শ্রীলংকা উভয়েই অবগত। উপরন্তু, এই অঞ্চলে বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস ের কারণে নেট রান রেটের অপ্রত্যাশিত ফ্যাক্টরটি কার্যকর হতে পারে।

শ্রীলঙ্কা:

দাসুন শানাকা (অধিনায়ক), পাথুম নিশাখা, দিমুথ করুনারত্নে, কুশল পেরেরা, কুশল মেন্ডিস (ভিসি), চারিথ আসালাঙ্কা, ধনঞ্জয়া ডি সিলভা, সাদিরা রাশেন সামারাবিক্রমা, মহেশ থিকসানা, ডুনিথ ওয়েললেজ, মাথিশা, পাথিরানা, কাসুন রাজিথা, দুশান হেমন্ত, বিনুরা ফার্নান্দো, প্রমোদ মাদুশান

বাংলাদেশ:

সাকিব আল হাসান (অধিনায়ক), নাজমুল হোসেন শান্ত, তাওহীদ হৃদয়, মুশফিকুর রহিম, আফিফ হোসেন ধ্রুব, মেহেদী হাসান মিরাজ, তাসকিন আহমেদ, হাছান মাহমুদ, মুস্তাফিজুর রহমান, শরিফুল ইসলাম, নাসুম আহমেদ, শাক মেহেদী হাসান, নাঈম শেখ, শামীম হোসেন, তানজিদ হাসান তামিম, তানজিম হাসান সাকিব, এনামুল হক বিজয়