[fusion_builder_container type=”flex” hundred_percent=”no” hundred_percent_height=”no” min_height_medium=”” min_height_small=”” min_height=”” hundred_percent_height_scroll=”no” align_content=”stretch” flex_align_items=”flex-start” flex_justify_content=”flex-start” flex_column_spacing=”” hundred_percent_height_center_content=”yes” equal_height_columns=”no” container_tag=”div” menu_anchor=”” hide_on_mobile=”small-visibility,medium-visibility,large-visibility” status=”published” publish_date=”” class=”” id=”” spacing_medium=”” margin_top_medium=”” margin_bottom_medium=”” spacing_small=”” margin_top_small=”” margin_bottom_small=”” margin_top=”” margin_bottom=”” padding_dimensions_medium=”” padding_top_medium=”” padding_right_medium=”” padding_bottom_medium=”” padding_left_medium=”” padding_dimensions_small=”” padding_top_small=”” padding_right_small=”” padding_bottom_small=”” padding_left_small=”” padding_top=”” padding_right=”” padding_bottom=”” padding_left=”” link_color=”” link_hover_color=”” border_sizes=”” border_sizes_top=”” border_sizes_right=”” border_sizes_bottom=”” border_sizes_left=”” border_color=”” border_style=”solid” box_shadow=”no” box_shadow_vertical=”” box_shadow_horizontal=”” box_shadow_blur=”0″ box_shadow_spread=”0″ box_shadow_color=”” box_shadow_style=”” z_index=”” overflow=”” gradient_start_color=”” gradient_end_color=”” gradient_start_position=”0″ gradient_end_position=”100″ gradient_type=”linear” radial_direction=”center center” linear_angle=”180″ background_color=”” background_image=”” skip_lazy_load=”” background_position=”center center” background_repeat=”no-repeat” fade=”no” background_parallax=”none” enable_mobile=”no” parallax_speed=”0.3″ background_blend_mode=”none” video_mp4=”” video_webm=”” video_ogv=”” video_url=”” video_aspect_ratio=”16:9″ video_loop=”yes” video_mute=”yes” video_preview_image=”” render_logics=”” absolute=”off” absolute_devices=”small,medium,large” sticky=”off” sticky_devices=”small-visibility,medium-visibility,large-visibility” sticky_background_color=”” sticky_height=”” sticky_offset=”” sticky_transition_offset=”0″ scroll_offset=”0″ animation_type=”” animation_direction=”left” animation_speed=”0.3″ animation_offset=”” filter_hue=”0″ filter_saturation=”100″ filter_brightness=”100″ filter_contrast=”100″ filter_invert=”0″ filter_sepia=”0″ filter_opacity=”100″ filter_blur=”0″ filter_hue_hover=”0″ filter_saturation_hover=”100″ filter_brightness_hover=”100″ filter_contrast_hover=”100″ filter_invert_hover=”0″ filter_sepia_hover=”0″ filter_opacity_hover=”100″ filter_blur_hover=”0″][fusion_builder_row][fusion_builder_column type=”1_1″ layout=”1_1″ align_self=”auto” content_layout=”column” align_content=”flex-start” valign_content=”flex-start” content_wrap=”wrap” spacing=”” center_content=”no” link=”” target=”_self” link_description=”” min_height=”” hide_on_mobile=”small-visibility,medium-visibility,large-visibility” sticky_display=”normal,sticky” class=”” id=”” type_medium=”” type_small=”” order_medium=”0″ order_small=”0″ dimension_spacing_medium=”” dimension_spacing_small=”” dimension_spacing=”” dimension_margin_medium=”” dimension_margin_small=”” margin_top=”” margin_bottom=”” padding_medium=”” padding_small=”” padding_top=”” padding_right=”” padding_bottom=”” padding_left=”” hover_type=”none” border_sizes=”” border_color=”” border_style=”solid” border_radius=”” box_shadow=”no” dimension_box_shadow=”” box_shadow_blur=”0″ box_shadow_spread=”0″ box_shadow_color=”” box_shadow_style=”” overflow=”” background_type=”single” gradient_start_color=”” gradient_end_color=”” gradient_start_position=”0″ gradient_end_position=”100″ gradient_type=”linear” radial_direction=”center center” linear_angle=”180″ background_color=”” background_image=”” background_image_id=”” background_position=”left top” background_repeat=”no-repeat” background_blend_mode=”none” render_logics=”” filter_type=”regular” filter_hue=”0″ filter_saturation=”100″ filter_brightness=”100″ filter_contrast=”100″ filter_invert=”0″ filter_sepia=”0″ filter_opacity=”100″ filter_blur=”0″ filter_hue_hover=”0″ filter_saturation_hover=”100″ filter_brightness_hover=”100″ filter_contrast_hover=”100″ filter_invert_hover=”0″ filter_sepia_hover=”0″ filter_opacity_hover=”100″ filter_blur_hover=”0″ animation_type=”” animation_direction=”left” animation_speed=”0.3″ animation_offset=”” last=”true” border_position=”all” first=”true”][fusion_content_boxes layout=”icon-with-title” columns=”1″ link_type=”” button_span=”” link_area=”” link_target=”” icon_align=”left” animation_type=”” animation_direction=”left” animation_speed=”0.3″ animation_delay=”” animation_offset=”” hide_on_mobile=”small-visibility,medium-visibility,large-visibility” class=”” id=”” title_size=”” heading_size=”2″ title_color=”” hue=”” saturation=”” lightness=”” alpha=”” body_color=”” backgroundcolor=”” icon=”” iconflip=”” iconrotate=”” iconspin=”no” iconcolor=”” icon_circle=”” icon_circle_radius=”” circlecolor=”” circlebordersize=”” circlebordercolor=”” outercirclebordersize=”” outercirclebordercolor=”” icon_size=”” icon_hover_type=”” hover_accent_color=”” image=”” image_id=”” image_max_width=”” margin_top=”” margin_bottom=””][fusion_content_box title=”ম্যাচের বিবরণ” backgroundcolor=”” hue=”” saturation=”” lightness=”” alpha=”” icon=”” iconflip=”” iconrotate=”” iconspin=”” iconcolor=”” circlecolor=”” circlebordersize=”” circlebordercolor=”” outercirclebordersize=”” outercirclebordercolor=”” image=”” image_id=”” image_max_width=”” link=”” linktext=”Read More” link_target=”” animation_type=”” animation_direction=”left” animation_speed=”0.3″ animation_offset=””]

“আয়ারল্যান্ডের ২০২৩ সালের ইংল্যান্ড সফরের উদ্বোধনী ওয়ানডে ২০ সেপ্টেম্বর লিডসের হেডিংলিতে অনুষ্ঠিত হবে”

[/fusion_content_box][fusion_content_box title=”ম্যাচ প্রিভিউ” backgroundcolor=”” hue=”” saturation=”” lightness=”” alpha=”” icon=”” iconflip=”” iconrotate=”” iconspin=”” iconcolor=”” circlecolor=”” circlebordersize=”” circlebordercolor=”” outercirclebordersize=”” outercirclebordercolor=”” image=”” image_id=”” image_max_width=”” link=”” linktext=”Read More” link_target=”” animation_type=”” animation_direction=”left” animation_speed=”0.3″ animation_offset=””]

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৩-১ ব্যবধানে জয়ের পর আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের প্রস্তুতি নিচ্ছে ইংল্যান্ড।

সম্প্রতি নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে চার ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ শেষ করে টানা তিন জয়ে ৩-১ ব্যবধানে সিরিজ নিশ্চিত করেছে ইংল্যান্ড। এবার ঘরের মাঠে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলবে তারা।

অন্যদিকে আয়ারল্যান্ড আইসিসি বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে নেপাল, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে টানা তিন ম্যাচ জিতে দুর্দান্ত ফর্ম দেখিয়েছে। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এই সিরিজটি আয়ারল্যান্ডের জন্য একটি শক্তিশালী ওয়ানডে ক্রিকেট দলের মুখোমুখি হয়ে মূল্যবান অভিজ্ঞতা অর্জনের একটি গুরুত্বপূর্ণ সুযোগ উপস্থাপন করে।

[/fusion_content_box][fusion_content_box title=”ইংল্যান্ড পর্যালোচনা” backgroundcolor=”” hue=”” saturation=”” lightness=”” alpha=”” icon=”” iconflip=”” iconrotate=”” iconspin=”” iconcolor=”” circlecolor=”” circlebordersize=”” circlebordercolor=”” outercirclebordersize=”” outercirclebordercolor=”” image=”” image_id=”” image_max_width=”” link=”” linktext=”Read More” link_target=”” animation_type=”” animation_direction=”left” animation_speed=”0.3″ animation_offset=””]

আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে আসন্ন ওয়ানডে সিরিজে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে যে দল নিজেদের যোগ্যতা প্রমাণ করেছে, সেই একই দল নিয়ে মাঠে নামছে ইংল্যান্ড। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দলের পারফরম্যান্স দুর্দান্ত ছিল, প্রায় সব খেলোয়াড়ই প্রশংসনীয় পারফরম্যান্স করেছিল। নিউজিল্যান্ড সিরিজে জো রুট কিছুটা লড়াইয়ের মুখোমুখি হয়েছিলেন, তবে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে তিনি তার ফর্মটি খুঁজে পাবেন বলে আশাবাদ রয়েছে। এই সিরিজে শক্তিশালী পারফরম্যান্স ইংল্যান্ডের আইসিসি ওয়ানডে বিশ্বকাপ স্কোয়াডে রুটের জায়গা নিশ্চিত করতে পারে। উপরন্তু, ইংল্যান্ড এই সিরিজটি কিছু তরুণ প্রতিভা নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে ব্যবহার করতে পারে।

আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে ইংল্যান্ডকে নেতৃত্ব দেবেন নবনিযুক্ত অধিনায়ক জ্যাক ক্রলি। স্যাম হেইন, জো রুট এবং বেন ডাকেটের মতো বিশিষ্ট নামগুলি সহ ক্রলির একটি শক্তিশালী লাইনআপ রয়েছে, যারা ব্যাটিং অর্ডারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। উইল জ্যাকস, ফিলিপ সল্ট এবং জেমি স্মিথও দলে রয়েছেন, যা ইংল্যান্ডের ব্যাটিং লাইনআপে গভীরতা যোগ করে। উল্লেখ্য, এই সিরিজের জন্য ইংল্যান্ড স্কোয়াডে তিনজন আনক্যাপড খেলোয়াড়কে অন্তর্ভুক্ত করেছে: স্যাম হেইন, জেমি স্মিথ এবং জর্জ স্ক্রিমশ। আইসিসি ওয়ানডে বিশ্বকাপ স্কোয়াডে নেই এমন খেলোয়াড়দের ফিল্ডিং করা টা কৌতূহলোদ্দীপক।

[/fusion_content_box][fusion_content_box title=”আয়ারল্যান্ড পর্যালোচনা” backgroundcolor=”” hue=”” saturation=”” lightness=”” alpha=”” icon=”” iconflip=”” iconrotate=”” iconspin=”” iconcolor=”” circlecolor=”” circlebordersize=”” circlebordercolor=”” outercirclebordersize=”” outercirclebordercolor=”” image=”” image_id=”” image_max_width=”” link=”” linktext=”Read More” link_target=”” animation_type=”” animation_direction=”left” animation_speed=”0.3″ animation_offset=””]

আয়ারল্যান্ড ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ জয় নিশ্চিত করার জন্য একটি আশাব্যঞ্জক অবস্থানে রয়েছে, কারণ ইংল্যান্ড এই সিরিজের জন্য একটি দ্বিতীয় স্তরের দল মাঠে নামছে। উল্লেখ্য, আয়ারল্যান্ড ২০২০ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে তাদের সর্বশেষ ওয়ানডে ম্যাচে বিজয়ী হয়েছিল। এই সিরিজে আয়ারল্যান্ডের নেতৃত্ব দিচ্ছেন পল স্টার্লিং, যার হাতে রয়েছে পূর্ণ শক্তির দল। এটি তুলে ধরা গুরুত্বপূর্ণ যে আয়ারল্যান্ড বিশ্বকাপের জন্য যোগ্যতা অর্জন করতে পারেনি, কারণ জিম্বাবুয়েতে আইসিসি বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে তাদের পারফরম্যান্স চিত্তাকর্ষক ছিল না, ফলস্বরূপ আট টি দলের মধ্যে সপ্তম স্থান অর্জন করেছিল।

অ্যান্ডি ম্যাকব্রাইনের সঙ্গে জুটি বেঁধে আয়ারল্যান্ডের হয়ে ব্যাটিং শুরু করবেন পল স্টার্লিং। আইসিসি বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে আয়ারল্যান্ডের টপ ও মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানরা চ্যালেঞ্জের মুখে পড়লেও তারা এখনো শক্তিশালী দল। দলটিতে লরকান টাকার, হ্যারি টেক্টর এবং অ্যান্ড্রু বালবার্নির মতো বেশ কয়েকটি ব্যতিক্রমী অলরাউন্ডার রয়েছে, যারা মিডল এবং লোয়ার ব্যাটিং অর্ডারকে শক্তিশালী করতে পারে। আয়ারল্যান্ডের বোলিং ইউনিট কাগজে-কলমে শক্তিশালী বলে মনে হচ্ছে এবং তারা ইংল্যান্ডের উন্নয়নশীল দলের বিপক্ষে শক্তিশালী পারফরম্যান্স দেবে বলে আশা করা হচ্ছে। জোশুয়া লিটল, ক্রেইগ ইয়ং এবং জোশুয়া লিটলের সহায়তায় বোলিং আক্রমণের নেতৃত্ব দেবেন মার্ক অ্যাডেয়ার।

[/fusion_content_box][fusion_content_box title=”ইংল্যান্ডের ওয়ানডে ইতিহাস” backgroundcolor=”” hue=”” saturation=”” lightness=”” alpha=”” icon=”” iconflip=”” iconrotate=”” iconspin=”” iconcolor=”” circlecolor=”” circlebordersize=”” circlebordercolor=”” outercirclebordersize=”” outercirclebordercolor=”” image=”” image_id=”” image_max_width=”” link=”” linktext=”Read More” link_target=”” animation_type=”” animation_direction=”left” animation_speed=”0.3″ animation_offset=””]

একদিনের আন্তর্জাতিক (ওডিআই) ক্রিকেটে ইংল্যান্ড মোট ৭৮৪টি ম্যাচে অংশ নিয়েছে। এর মধ্যে তারা ৩৯৬ টি ম্যাচে জয় লাভ করেছে, অন্যদিকে তাদের প্রতিপক্ষ ৩৫০ টি ম্যাচে বিজয়ী হয়েছে। উপরন্তু, ৩০ টি ম্যাচ ছিল যা কোনও চূড়ান্ত ফলাফল ছাড়াই শেষ হয়েছিল এবং আটটি ওয়ানডে রোমাঞ্চকর ম্যাচে শেষ হয়েছিল।

[/fusion_content_box][fusion_content_box title=”আয়ারল্যান্ডের ওয়ানডে ইতিহাস” backgroundcolor=”” hue=”” saturation=”” lightness=”” alpha=”” icon=”” iconflip=”” iconrotate=”” iconspin=”” iconcolor=”” circlecolor=”” circlebordersize=”” circlebordercolor=”” outercirclebordersize=”” outercirclebordercolor=”” image=”” image_id=”” image_max_width=”” link=”” linktext=”Read More” link_target=”” animation_type=”” animation_direction=”left” animation_speed=”0.3″ animation_offset=””]

একদিনের আন্তর্জাতিক (ওডিআই) বিশ্বে আয়ারল্যান্ডের যাত্রা ১৯৪ টি ম্যাচ জুড়ে বিস্তৃত হয়েছে। এর মধ্যে ৭৮ ম্যাচে জয় উদযাপন করেছে তারা, আর ১০০ ম্যাচে পরাজয়ের মুখোমুখি হয়েছে তারা। উপরন্তু, ১৩ টি ম্যাচ ছিল যা কোনও ফলাফল ছাড়াই শেষ হয়েছিল এবং আয়ারল্যান্ড তিনটি টাই ওয়ানডের রোমাঞ্চ অনুভব করেছিল।

[/fusion_content_box][fusion_content_box title=”ইংল্যান্ড বনাম আয়ারল্যান্ড ওয়ানডে ইতিহাস” backgroundcolor=”” hue=”” saturation=”” lightness=”” alpha=”” icon=”” iconflip=”” iconrotate=”” iconspin=”” iconcolor=”” circlecolor=”” circlebordersize=”” circlebordercolor=”” outercirclebordersize=”” outercirclebordercolor=”” image=”” image_id=”” image_max_width=”” link=”” linktext=”Read More” link_target=”” animation_type=”” animation_direction=”left” animation_speed=”0.3″ animation_offset=””]

একদিনের আন্তর্জাতিকে (ওডিআই) আয়ারল্যান্ড ১৩ বার ইংল্যান্ডের সাথে পথ অতিক্রম করেছে। এই সংঘর্ষের মধ্যে আয়ারল্যান্ড দু’বার বিজয়ী হয়েছিল এবং ইংল্যান্ড ১০ টি লড়াইয়ে জয়ী হয়েছিল। একটি একক ম্যাচ ছিল যা কোনও চূড়ান্ত ফলাফল ছাড়াই শেষ হয়েছিল।

[/fusion_content_box][fusion_content_box title=”প্রিয় দল” backgroundcolor=”” hue=”” saturation=”” lightness=”” alpha=”” icon=”” iconflip=”” iconrotate=”” iconspin=”” iconcolor=”” circlecolor=”” circlebordersize=”” circlebordercolor=”” outercirclebordersize=”” outercirclebordercolor=”” image=”” image_id=”” image_max_width=”” link=”” linktext=”Read More” link_target=”” animation_type=”” animation_direction=”left” animation_speed=”0.3″ animation_offset=””]

আমাদের ম্যাচের ভবিষ্যদ্বাণীতে, ইংল্যান্ড এই আসন্ন ম্যাচে জয় অর্জনের জন্য পছন্দসই দল হিসাবে আবির্ভূত হবে। ফেভারিট হিসাবে ইংল্যান্ডের অবস্থানে বেশ কয়েকটি কারণ অবদান রাখে:

  • ইংল্যান্ডের ইয়ং স্কোয়াড: তরুণ ও সম্ভাবনাময় খেলোয়াড়দের সমন্বয়ে একটি স্কোয়াড মাঠে নামছে ইংলিশ দল।
  • আয়ারল্যান্ডের সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স: বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের ম্যাচগুলোতে আয়ারল্যান্ডের পারফরম্যান্স বিশেষ চিত্তাকর্ষক হয়নি।
  • হেড-টু-হেড রেকর্ড: ঐতিহাসিকভাবে, ইংল্যান্ড আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে সাফল্য উপভোগ করেছে, একটি অনুকূল হেড-টু-হেড রেকর্ড নিয়ে গর্বিত।
  • হোম গ্রাউন্ড অ্যাডভান্টেজ: উত্সাহী দর্শকদের দ্বারা সমর্থিত ইংল্যান্ড ঘরের মাঠে খেলার সুবিধা রাখে।

আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে এই ম্যাচে ইংল্যান্ডকে সম্ভাব্য ফেভারিট করে তুলেছে এই সব কিছু।

[/fusion_content_box][fusion_content_box title=”জয়ের সুযোগ” backgroundcolor=”” hue=”” saturation=”” lightness=”” alpha=”” icon=”” iconflip=”” iconrotate=”” iconspin=”” iconcolor=”” circlecolor=”” circlebordersize=”” circlebordercolor=”” outercirclebordersize=”” outercirclebordercolor=”” image=”” image_id=”” image_max_width=”” link=”” linktext=”Read More” link_target=”” animation_type=”” animation_direction=”left” animation_speed=”0.3″ animation_offset=””]

ইংল্যান্ড নিঃসন্দেহে একদিনের আন্তর্জাতিক (ওডিআই) ক্রিকেটের ক্ষেত্রে একটি শক্তিশালী দল, এই ফর্ম্যাটে বিস্তৃত অভিজ্ঞতা রয়েছে। ফলস্বরূপ, আজকের ম্যাচে তাদের জয়ের সম্ভাবনা উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। আজকের প্রতিযোগিতায় উভয় দলের জয়ের সম্ভাবনার একটি বিবরণ এখানে দেওয়া হল:

এই ম্যাচে ইংল্যান্ডের জয়ের সম্ভাবনা ৭০ শতাংশ।
আয়ারল্যান্ড, যদিও প্রতিযোগিতামূলক, এই ম্যাচে জয় নিশ্চিত করার ৩০% সম্ভাবনার মুখোমুখি।

ইংল্যান্ডের শক্তিশালী ওয়ানডে ইতিহাস এবং দক্ষতা তাদের এই শোডাউনে আরও বেশি বিজয়ী করে তোলে।

[/fusion_content_box][fusion_content_box title=”টস ভবিষ্যদ্বাণী” backgroundcolor=”” hue=”” saturation=”” lightness=”” alpha=”” icon=”” iconflip=”” iconrotate=”” iconspin=”” iconcolor=”” circlecolor=”” circlebordersize=”” circlebordercolor=”” outercirclebordersize=”” outercirclebordercolor=”” image=”” image_id=”” image_max_width=”” link=”” linktext=”Read More” link_target=”” animation_type=”” animation_direction=”left” animation_speed=”0.3″ animation_offset=””]

টস এই সিরিজের প্রতিটি ম্যাচের ফলাফলের উপর গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব ফেলবে। আমাদের ভবিষ্যদ্বাণী অনুযায়ী, টস জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ের পথ বেছে নেওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

[/fusion_content_box][fusion_content_box title=”পিচ রিপোর্ট” backgroundcolor=”” hue=”” saturation=”” lightness=”” alpha=”” icon=”” iconflip=”” iconrotate=”” iconspin=”” iconcolor=”” circlecolor=”” circlebordersize=”” circlebordercolor=”” outercirclebordersize=”” outercirclebordercolor=”” image=”” image_id=”” image_max_width=”” link=”” linktext=”Read More” link_target=”” animation_type=”” animation_direction=”left” animation_speed=”0.3″ animation_offset=””]

আয়ারল্যান্ড বনাম ইংল্যান্ড সিরিজের প্রথম ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে লিডসের হেডিংলিতে। এই ভেন্যুটি ইংল্যান্ডের অন্যতম সেরা ব্যাটিং পৃষ্ঠসরবরাহের জন্য বিখ্যাত। সাধারণত, এটি দুর্দান্ত বাউন্স সরবরাহ করে এবং পেসারদের বহন করে, বলটি আরামদায়কভাবে ব্যাটে আসতে দেয়, ব্যাটসম্যানদের জন্য মার্জিত স্ট্রোকপ্লেসহজতর করে। ম্যাচের অগ্রগতির সাথে সাথে, সাধারণত ২০ তম ওভারের পরে, পিচটি স্পিন বোলারদের পক্ষে থাকে, তাদের জন্য পালা এবং সমর্থন সরবরাহ করে। যাইহোক, এটি লক্ষণীয় যে পিচটি সুইং বোলারদেরও সহায়তা করতে পারে, বিশেষত খেলার প্রাথমিক পর্যায়ে যখন বলটি তাজা থাকে।

[/fusion_content_box][fusion_content_box title=”আবহাওয়া প্রতিবেদন” backgroundcolor=”” hue=”” saturation=”” lightness=”” alpha=”” icon=”” iconflip=”” iconrotate=”” iconspin=”” iconcolor=”” circlecolor=”” circlebordersize=”” circlebordercolor=”” outercirclebordersize=”” outercirclebordercolor=”” image=”” image_id=”” image_max_width=”” link=”” linktext=”Read More” link_target=”” animation_type=”” animation_direction=”left” animation_speed=”0.3″ animation_offset=””]

ম্যাচের দিন লিডসের আবহাওয়ার পূর্বাভাস বেশ খারাপ। সারা দিন ধরে ধারাবাহিক বৃষ্টিপাতের আশা করুন, যা খেলার ক্ষেত্রে একটি উল্লেখযোগ্য চ্যালেঞ্জ তৈরি করতে পারে।

[/fusion_content_box][fusion_content_box title=”ইংল্যান্ড বনাম আইআরই সম্ভাব্য একাদশ” backgroundcolor=”” hue=”” saturation=”” lightness=”” alpha=”” icon=”” iconflip=”” iconrotate=”” iconspin=”” iconcolor=”” circlecolor=”” circlebordersize=”” circlebordercolor=”” outercirclebordersize=”” outercirclebordercolor=”” image=”” image_id=”” image_max_width=”” link=”” linktext=”Read More” link_target=”” animation_type=”” animation_direction=”left” animation_speed=”0.3″ animation_offset=””]

ইংল্যান্ড একাদশ: বেন ডাকেট, জ্যাক ক্রলি (অধিনায়ক), জো রুট, ফিলিপ সল্ট, জেমি স্মিথ, রেহান আহমেদ, উইল জ্যাকস, লুক উড, ব্রাইডন কারসে, টম হার্টলি, জর্জ স্ক্রিমশ।

আয়ারল্যান্ড একাদশ: পল স্টার্লিং (অধিনায়ক), অ্যান্ড্রু বালবির্নি, লরকান টাকার, হ্যারি টেক্টর, কার্টিস ক্যাম্পার, জর্জ ডকরেল, গ্যারেথ ডেলানি, ক্রেইগ ইয়ং, মার্ক অ্যাডায়ার, ব্যারি ম্যাকার্থি, জোশুয়া লিটল।

[/fusion_content_box][fusion_content_box title=”ম্যাচের তারিখ ও সময়” backgroundcolor=”” hue=”” saturation=”” lightness=”” alpha=”” icon=”” iconflip=”” iconrotate=”” iconspin=”” iconcolor=”” circlecolor=”” circlebordersize=”” circlebordercolor=”” outercirclebordersize=”” outercirclebordercolor=”” image=”” image_id=”” image_max_width=”” link=”” linktext=”Read More” link_target=”” animation_type=”” animation_direction=”left” animation_speed=”0.3″ animation_offset=””]

তারিখ: বুধবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২৩
সময়: সকাল ১১:৩০ জিএমটি / ১২:৩০ অপরাহ্ণ স্থানীয় / ০৫:০০ অপরাহ্ন

[/fusion_content_box][fusion_content_box title=”স্থানের বিবরণ” backgroundcolor=”” hue=”” saturation=”” lightness=”” alpha=”” icon=”” iconflip=”” iconrotate=”” iconspin=”” iconcolor=”” circlecolor=”” circlebordersize=”” circlebordercolor=”” outercirclebordersize=”” outercirclebordercolor=”” image=”” image_id=”” image_max_width=”” link=”” linktext=”Read More” link_target=”” animation_type=”” animation_direction=”left” animation_speed=”0.3″ animation_offset=””]

স্টেডিয়াম: হেডিংলি
অবস্থান: লিডস, ইংল্যান্ড
খোলা: ১৯৮০
ক্যাপাসিটি: ১৭০০
পরিচিত: হেডিংলি গ্রাউন্ডস
শেষ: কির্কস্টল লেন এন্ড, ফুটবল স্ট্যান্ড এন্ড
টাইম জোন: ইউটিসি +০১:০০
হোম: ইয়র্কশায়ার

[/fusion_content_box][fusion_content_box title=”ওয়ানডেতে ভেন্যু স্কোরিং প্যাটার্ন” backgroundcolor=”” hue=”” saturation=”” lightness=”” alpha=”” icon=”” iconflip=”” iconrotate=”” iconspin=”” iconcolor=”” circlecolor=”” circlebordersize=”” circlebordercolor=”” outercirclebordersize=”” outercirclebordercolor=”” image=”” image_id=”” image_max_width=”” link=”” linktext=”Read More” link_target=”” animation_type=”” animation_direction=”left” animation_speed=”0.3″ animation_offset=””]

সর্বমোট ম্যাচ: ৪৭
প্রথমে ব্যাট করে ম্যাচ জয়ী: ১৮
ম্যাচ জয়ী প্রথম বোলিং: ২৬
গড় ১ম ইন স্কোর: ২২৭
গড় ২ য় ইন স্কোর: ২১১
সর্বোচ্চ রেকর্ড করা স্কোর: ৩৫১/৯ (৫০ ওভার) ইংল্যান্ড বনাম পাকিস্তান
সর্বনিম্ন মোট রেকর্ড: ৯৩/১০ (৩৬.২ ওভার) ইংলেন্ড বনাম অস্ট্রেলিয়া
সর্বোচ্চ রান তাড়া: ৩২৪/২ (৩৭.৩ ওভার) শ্রীলঙ্কা বনাম ইংল্যান্ড
সর্বনিম্ন স্কোর: ১৬৫/৯ (৬০ ওভার) ইংল্যান্ড বনাম পাকিস্তান

[/fusion_content_box][fusion_content_box title=”ইংল্যান্ডের ওয়ানডে স্কোয়াড” backgroundcolor=”” hue=”” saturation=”” lightness=”” alpha=”” icon=”” iconflip=”” iconrotate=”” iconspin=”” iconcolor=”” circlecolor=”” circlebordersize=”” circlebordercolor=”” outercirclebordersize=”” outercirclebordercolor=”” image=”” image_id=”” image_max_width=”” link=”” linktext=”Read More” link_target=”” animation_type=”” animation_direction=”left” animation_speed=”0.3″ animation_offset=””]

বেন ডাকেট, জ্যাক ক্রলি (অধিনায়ক), জো রুট, ফিলিপ সল্ট, জেমি স্মিথ ( উইকেটরক্ষক), রেহান আহমেদ, উইল জ্যাকস, লুক উড, ব্রাইডন কারসে, টম হার্টলি, জর্জ স্ক্রিমশ, ম্যাথু পটস, স্যাম হেইন।

[/fusion_content_box][fusion_content_box title=”আয়ারল্যান্ড ওয়ানডে স্কোয়াড” backgroundcolor=”” hue=”” saturation=”” lightness=”” alpha=”” icon=”” iconflip=”” iconrotate=”” iconspin=”” iconcolor=”” circlecolor=”” circlebordersize=”” circlebordercolor=”” outercirclebordersize=”” outercirclebordercolor=”” image=”” image_id=”” image_max_width=”” link=”” linktext=”Read More” link_target=”” animation_type=”” animation_direction=”left” animation_speed=”0.3″ animation_offset=””]

পল স্টার্লিং (অধিনায়ক), অ্যান্ড্রু বালবির্নি, লরকান টাকার( উইকেটরক্ষক), হ্যারি টেক্টর, কার্টিস ক্যাম্পার, জর্জ ডকরেল, গ্যারেথ ডেলানি, ক্রেইগ ইয়ং, মার্ক অ্যাডায়ার, ব্যারি ম্যাকার্থি, জোশুয়া লিটল, নিল রক, গ্রাহাম হিউম, অ্যান্ডি ম্যাকব্রাইন, থিও ভ্যান ওয়ারকম।

[/fusion_content_box][/fusion_content_boxes][/fusion_builder_column][/fusion_builder_row][/fusion_builder_container]