কলম্বোতে এশিয়া কাপ ২০২৩ সুপার ফোরে শ্রীলঙ্কার কাছে পাকিস্তানের পরাজয়ের পর বাবর আজমের অধিনায়কত্ব নিয়ে নিজের মতামত প্রকাশে পিছপা হননি ভারতের সাবেক ক্রিকেটার গৌতম গম্ভীর।

স্টার স্পোর্টসে এক আলোচনায় গম্ভীর খোলাখুলিভাবে বাবরের অধিনায়কত্বের সমালোচনা করেন, বিশেষ করে ম্যাচের গুরুত্বপূর্ণ সমাপনী পর্বে।

“আমার কাছে এটা খুবই সাধারণ অধিনায়কত্বও ছিল। মিড-অফে জামান খানের ওভারে একটি চার আঘাত ছিল এবং মিড-অফে শাহিন শাহ আফ্রিদির ওভারে আরও চারটি আঘাত ছিল এবং দুটি বলই ধীর গতির ছিল, “গম্ভীর মন্তব্য করেছিলেন।

গম্ভীর জোর দিয়েছিলেন যে বাবরের ফিল্ড প্লেসমেন্টগুলি সামঞ্জস্য করা উচিত ছিল যখন ধীর গতির বল গুলি করা হচ্ছিল।

“আপনি যদি ধীর গতির বোলিং করতে চান তবে মিড-অফ ফিল্ডারকে লং-অফে রাখুন এবং তৃতীয় ব্যক্তিকে উপরে নিয়ে আসুন। এটা খুবই সহজ অধিনায়কত্ব। কল্পনা করুন, শেষ ওভারে যদি ১৩ রান বাকি থাকত, তাহলে শ্রীলঙ্কার জন্য এটা কঠিন হতো।

কুশল মেন্ডিস ও সাদিরা সামারাবিক্রমার সেঞ্চুরি পার্টনারশিপের সময় বাবরের অধিনায়কত্ব কৌশল নিয়েও প্রশ্ন তোলেন গম্ভীর।

তিনি বলেন, ‘আপনি এক পর্যায়ে খেলাকে উল্টে যেতে দিচ্ছিলেন। আপনি আপনার ষষ্ঠ বোলারের কোটা পূরণ করতে চেয়েছিলেন। এটা সেভাবে কাজ করে না। যখন কুশল মেন্ডিস এবং সাদিরা সামারাবিক্রমার মধ্যে পার্টনারশিপ গড়ে উঠছিল, তখন আপনার উচিত ছিল মূল বোলারদের নিয়ে আসা এবং উইকেট নেওয়ার চেষ্টা করা।

গম্ভীর ের মতে, মাঝের ওভারগুলিতে আরও আক্রমণাত্মক দৃষ্টিভঙ্গি, উইকেট নেওয়ার দিকে মনোনিবেশ করা, খেলার প্রকৃতিবিবেচনায় পাকিস্তানের জয়ের মূল চাবিকাঠি হতে পারে। তিনি বাবরের অধিনায়কত্বের স্টাইলের সাথে খাপ খাইয়ে নেওয়ার প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরে শেষ করেন, স্বীকার করেন যে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের তুলনায় ওয়ানডে ক্রিকেটের জন্য আলাদা কৌশল এবং দৃষ্টিভঙ্গি প্রয়োজন।

তিনি বলেন, ‘পাকিস্তান শুধু উইকেট নিয়েই এই ম্যাচ জিততে পারত। শ্রীলংকা যদি শেষ পর্যন্ত ব্যাটিং করত, তাহলে তারা আগের চেয়ে আগেই জিততে পারত। আমি মনে করি বাবর আজমকে তার অধিনায়কত্বে কিছুটা ভাল হতে হবে কারণ ওয়ানডে ক্রিকেট টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের মতো নয়।

কলম্বোর আর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে ভার্চুয়াল সেমিফাইনালে পাকিস্তান ৪২ ওভারে ৭ উইকেটে ২৫২ রান তোলে। তবে দাসুন শানাকার নেতৃত্বাধীন শ্রীলংকা রোববার শেষ ডেলিভারিতে ডিএলএস পদ্ধতিতে দুই উইকেটের বড় জয় নিশ্চিত করে ভারতের বিপক্ষে ফাইনালে জায়গা করে নেয়।