পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) ক্রিকেট কমিটির প্রধান মিসবাহ-উল-হকের সভাপতিত্বে লাহোরে একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সাবেক অধিনায়ক রশিদ লতিফ ও মোহাম্মদ হাফিজ, বোর্ডের সিওও সালমান নাসির এবং ঘরোয়া ক্রিকেট ের পরিচালক জুনায়েদ জিয়াসহ উল্লেখযোগ্য ক্রিকেট ব্যক্তিত্বরা এই সমাবেশে অংশ নিয়েছিলেন।

বৈঠকের প্রাথমিক এজেন্ডা ছিল ২০১৪ সালের সংবিধান ের সাথে সামঞ্জস্য রেখে আসন্ন ঘরোয়া ক্রিকেট মরসুম নিয়ে আলোচনা এবং কৌশল নির্ধারণ করা। তবে আলোচনার সময় আঞ্চলিক দলগুলোর অন্তর্ভুক্তি এবং ক্রিকেট বলের ধরন নিয়ে সাবেক তিন অধিনায়কের মধ্যে ভিন্ন মত উঠে আসে।

মিডিয়া রিপোর্টগুলি ইঙ্গিত দেয় যে মিসবাহ আসন্ন ঘরোয়া মরসুমে আটটি অঞ্চলকে অন্তর্ভুক্ত করার পক্ষে ছিলেন। অন্যদিকে মোহাম্মদ হাফিজ ও রশিদ লতিফ উভয়েই ভিন্ন মত পোষণ করেছেন। হাফিজ মাত্র ছয়টি অঞ্চলের অংশগ্রহণের প্রস্তাব করেছিলেন, যখন রশিদ কায়েদ-ই-আজম ট্রফিতে শিয়ালকোট অঞ্চলের অংশগ্রহণের উপর বিশেষ জোর দিয়ে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে ১৬ টি অঞ্চলকে অন্তর্ভুক্ত করার পরামর্শ দিয়ে বৃহত্তর সংখ্যক দলের পক্ষে যুক্তি দিয়েছিলেন।

বৈঠকে বিতর্কের আরেকটি বিষয় ছিল ঘরোয়া মরসুমের জন্য ক্রিকেট বল নির্বাচন। তিন প্রাক্তন ক্রিকেটারই ডিউক বল ব্যবহার ের বিষয়ে আপত্তি প্রকাশ করেছিলেন এবং ঘরোয়া ক্রিকেটে কুকাবুরা বল ব্যবহারের পক্ষে ছিলেন। তবে জুনায়েদ জিয়া তাদের জানান যে ডিউক বলগুলি ইতিমধ্যে কেনা হয়েছে এবং কাস্টম-তৈরি হওয়ায় ফেরত দেওয়া যাচ্ছে না।

আগামী ১ সেপ্টেম্বর থেকে কায়েদ-ই-আজম ট্রফি দিয়ে শুরু হতে যাচ্ছে আসন্ন ঘরোয়া ক্রিকেট মৌসুম। আগামী ৬ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হওয়ার কথা পাকিস্তান কাপওয়ানডে টুর্নামেন্ট। মরসুমে প্রাথমিকভাবে আটটি অঞ্চল এবং সমান সংখ্যক বিভাগ থাকবে বলে আশা করা হচ্ছে।