শ্রীলঙ্কার বর্ষা মৌসুমে এশিয়া কাপ আয়োজনের সিদ্ধান্ত নেয়ায় তীব্র পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও সমালোচনার মুখে পড়েছে এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল (এসিসি)।

পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) ম্যানেজমেন্ট কমিটির সাবেক চেয়ারম্যান নাজাম শেঠি ২০২৩ সালের এশিয়া কাপে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যকার বহুল প্রত্যাশিত ম্যাচটি বৃষ্টির কারণে বাতিল হয়ে যাওয়ায় হতাশা প্রকাশ করেছেন।

শেঠি সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি পোস্টে প্রকাশ করেছেন যে প্রতিকূল আবহাওয়ার কারণে সৃষ্ট বিঘ্ন এড়াতে তিনি সংযুক্ত আরব আমিরাতে (ইউএই) এশিয়া কাপের ম্যাচগুলি আয়োজনের পক্ষে জোরালো সমর্থন করেছিলেন।

‘কী হতাশাজনক! বৃষ্টি ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় প্রতিযোগিতাকে ব্যাহত করে। তবে এটি অনুমানযোগ্য ছিল। পিসিবি চেয়ারম্যান হিসেবে আমি এসিসিকে সংযুক্ত আরব আমিরাতে খেলার আহ্বান জানিয়েছিলাম, কিন্তু শ্রীলঙ্কাকে জায়গা দেওয়ার জন্য দুর্বল অজুহাত তৈরি করা হয়েছিল। তাদের দাবি, দুবাইয়ে খুব গরম ছিল। তবে ২০২২ সালের সেপ্টেম্বরে শেষবার যখন এশিয়া কাপ অনুষ্ঠিত হয়েছিল বা ২০১৪ সালের এপ্রিল ও ২০২০ সালের সেপ্টেম্বরে সেখানে আইপিএল অনুষ্ঠিত হয়েছিল, তখনও একই রকম গরম ছিল। খেলাধুলাকে ঢেকে দিচ্ছে রাজনীতি। ক্ষমার অযোগ্য,” শেঠি সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম এক্স-এ পোস্ট করেছেন।

প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেটার বীরেন্দ্র শেহওয়াগ বর্ষামৌসুমে এশিয়া কাপ আয়োজন ের বিষয়ে কৌতুক করেছেন।

এদিকে, শ্রীলঙ্কাকে ভেন্যু হিসেবে বেছে নেওয়ার এসিসির সিদ্ধান্তে হতাশা প্রকাশ করে পাকিস্তানি সমর্থকরা জোর দিয়ে বলেছেন, আবহাওয়াজনিত বাধা ছাড়াই পাকিস্তান সহজেই পুরো টুর্নামেন্টটি আয়োজন করতে পারত।

উল্লেখ্য, ২০২৩ সালের এশিয়া কাপে অংশ নিতে ভারত পাকিস্তান ে যেতে অস্বীকৃতি জানানোর পর শ্রীলঙ্কা সহ-আয়োজক হয়ে ওঠে। সমঝোতা হিসাবে শেঠির প্রস্তাবিত একটি হাইব্রিড মডেল গ্রহণ করা হয়েছিল, যেখানে এশিয়া কাপ ২০২৩ এর চারটি ম্যাচ পাকিস্তানে এবং বাকি ম্যাচগুলি শ্রীলঙ্কায় অনুষ্ঠিত হয়েছিল। শ্রীলংকায় টুর্নামেন্টকে প্রভাবিত করে আবহাওয়া জনিত বিঘ্নের কারণে এই সিদ্ধান্ত এখন সমালোচনার সম্মুখীন হচ্ছে।