স্পোর্টস ডেস্ক : আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে আসন্ন টেস্টে খেলতে পারবেন না জেমস অ্যান্ডারসন, যার অর্থ অ্যাশেজ সিরিজের আগে কোমরের চোট থেকে পুরোপুরি সেরে উঠেছেন তিনি।

৬৮৫ উইকেট নিয়ে টেস্ট ইতিহাসের সবচেয়ে সফল ফাস্ট বোলার ৪০ বছর বয়সী এই পেসার গত সপ্তাহে সমারসেটের বিপক্ষে ল্যাঙ্কাশায়ারের কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশিপের উদ্বোধনী দিনে চোট পান।

২০১৯ সালের অ্যাশেজের শুরুর সম্ভাব্য পুনরাবৃত্তির আশঙ্কা তৈরি হয়েছিল যখন অ্যান্ডারসন ফিরে এসে প্রথম টেস্টে মাত্র চার ওভার বোলিং করেছিলেন।

তার অনুপস্থিতিতে ইংল্যান্ডের আক্রমণে একটি বিশাল ফাঁক রেখে যায় এবং অস্ট্রেলিয়া ২৫১ রানে জয়ী হয়।

২-২ গোলে ড্র হওয়া সিরিজের বাকি অংশ মিস করেন অ্যান্ডারসন।

আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে ১ জুন থেকে শুরু হতে যাওয়া একমাত্র লর্ডস টেস্টের জন্য ইংল্যান্ডের ১৫ সদস্যের স্কোয়াডে অ্যান্ডারসনকে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য সাম্প্রতিক স্ক্যানগুলি যথেষ্ট ইতিবাচক ছিল।

তবে এজবাস্টনে অ্যাশেজের উদ্বোধনী ম্যাচের আগে অ্যান্ডারসনকে আয়ারল্যান্ডের দায়িত্ব থেকে বাদ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিতে পারে ইংল্যান্ড।

অ্যান্ডারসন বলেন, ‘আমি মনে করি আয়ারল্যান্ড ম্যাচের জন্য আমি ফিট থাকব।

ইংল্যান্ডের স্পন্সর র ্যাডক্সের হয়ে এক অনুষ্ঠানে এই সুইং বোলার বলেন, ‘আমি খেলব কি খেলব না সেটা সম্ভবত অন্য ব্যাপার। আমি অবশ্যই ঝুঁকি নিতে চাই না।

“আমি প্রথম অ্যাশেজ টেস্টের জন্য ফিট হতে মরিয়া। এর মানে যদি আয়ারল্যান্ড টেস্ট মিস করা হয়, তাহলে তাই হবে।

“আমি ভালো বোধ করছি। ম্যাচের দ্বিতীয় দিন (ল্যাঙ্কাশায়ার বনাম সমারসেট) আমার স্ক্যান করা হয়েছিল- এটি কিছুটা কোমরের স্ট্রেন ছিল।

“এটি একটি খারাপ পরিস্থিতির সেরা ফলাফল ছিল। সেই পরিস্থিতি (২০১৯ সালে) ছিল অন্যরকম, আরও গুরুতর আঘাত।

চলতি মৌসুমে কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশিপের চারটি ম্যাচে ১৬ উইকেট নেওয়া অ্যান্ডারসন বলেন, মাত্র ছয় সপ্তাহের মধ্যে পাঁচ টেস্টের অ্যাশেজ সূচি থাকায় তার কোমরের সমস্যা আশীর্বাদ হতে পারে।

তিনি বলেন, ‘একটি ম্যাচ থেকে সরে দাঁড়াতে পেরে আমি হতাশ হয়েছিলাম, কিন্তু গ্রীষ্মে যা ঘটতে যাচ্ছে, তা আসলে বেশ ভালো ফলাফল ছিল।