ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল) ২০২৩-এর ম্যাচে চেন্নাই সুপার কিংসের অধিনায়ককে শেষ বলে ছক্কা মারতে না পারায় মহেন্দ্র সিং ধোনির ভয় থেকে রক্ষা পেল রাজস্থান রয়্যালস। ধোনি, যিনি ইতিমধ্যে ওভারে ২ টি ছক্কা মেরেছিলেন, তিনি তার দলকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য তৃতীয় ছক্কা মারতে পারেননি। সুপার কিংস ফ্র্যাঞ্চাইজির অধিনায়ক হিসাবে ধোনির ২০০ তম ম্যাচে, তিনি বছরের পর বছর পিছনে ফিরে গিয়ে দেখিয়েছিলেন যে তার এখনও রান তাড়া শেষ করার ক্ষমতা রয়েছে। তবে রাজস্থানের স্কোর থেকে ৩ রান পিছিয়ে ম্যাচ শেষ করার পর ধোনির ৯ বছরের পুরনো একটি টুইট ভাইরাল হয়েছে।

টুইটে ধোনি লিখেছেন, ‘কোন দল জিতবে সেটা গুরুত্বপূর্ণ নয়, আমি এখানে বিনোদনের জন্য এসেছি। বুধবার রাতে এই বিবৃতি ভক্তদের কাছে খুব ভালভাবে মানানসই ছিল কারণ ধোনি সিএসকেকে আরআর-এর স্কোর অতিক্রম করতে পারেননি তবে তিনি ব্যাট দিয়ে প্রচুর বিনোদন সরবরাহ করেছিলেন।

জয়ের জন্য ১৭৬ রান তাড়া করতে নেমে ধোনি (৩২) জাদেজার (২৫) সাথে যোগ দিলে চেন্নাইয়ের স্কোর ছিল ১১৩/৬ এবং এই জুটি ৫৯ রানের অপরাজিত অংশীদারিত্ব গড়েছিল কিন্তু রাজস্থানের ১৭৫/৮ থেকে তিন রানে পিছিয়ে ছিল।

৪১ বছর বয়সী ধোনি শেষ ওভারে সন্দীপ শর্মাকে দুটি ছক্কা মেরে ছিলেন এবং শেষ ছয় বলে জয়ের জন্য চেন্নাইয়ের প্রয়োজন ছিল ২১ রান।

কিন্তু দুই ওয়াইড দিয়ে শুরু করা এই মাঝারি গতির বোলার দু’টি ইয়র্কার বোলিং করে ধোনি ও চেন্নাইকে অলৌকিক কিছু থেকে বঞ্চিত করেন এবং স্বাগতিকরা ৬ উইকেটে ১৭২ রানে শেষ হয়।

ইংল্যান্ডের সাদা বলের অধিনায়ক জস বাটলার ৫২ রানের ইনিংস খেলে গত বছরের রানার্সআপ রাজস্থানকে চার ম্যাচের মধ্যে তৃতীয় জয় এনে দেন এবং ১০ দলের তালিকার শীর্ষে পৌঁছে দেন।

বাটলারকে সাহায্য করেন দেবদত্ত পাডিক্কল (৩৮) ও রবিচন্দ্রন অশ্বিন, যারা ধীর গতিতে শুরু করলেও ৩০ রানের ক্যামিওতে দুটি ছক্কা মেরেছিলেন।

এরপর রাজস্থানের স্পিনার ও সন্দীপ মিলে চেন্নাইকে থামিয়ে দেন, অশ্বিন ২৫ রানে ২ উইকেট নেন, যার মধ্যে ৩১ রানে অজিঙ্কা রাহানের গুরুত্বপূর্ণ উইকেটও ছিল।

লেগ স্পিনার যুজবেন্দ্র চাহাল এক ওভারে দু’টি সেঞ্চুরি করে চেন্নাইয়ের প্রভাবশালী খেলোয়াড় আম্বাতি রায়ডু (এক) এবং নিউজিল্যান্ডের ডেভন কনওয়েকে আউট করেন।

বাটলারের জায়গায় আসা রাজস্থানের ইমপ্যাক্ট সাব অ্যাডাম জাম্পা তার লেগ স্পিন নিয়ে ব্যয়বহুল হলেও মঈন আলির উইকেট পেয়েছিলেন।

এম এ চিদাম্বরম স্টেডিয়ামে জাম্পার বলে চার ও ছক্কা ও আরও বড় হিট দিয়ে শোরগোল জাগিয়ে তোলেন ধোনি।