ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে গুজরাট টাইটান্সের কাছে হেরে জয়ের খাতা খুলতে পারেনি দিল্লি ক্যাপিটালস। যদিও এই বছর শিরোপা জয়ের জন্য চ্যালেঞ্জ করতে হলে দিল্লিকে বেশ কয়েকটি ক্ষেত্রে উন্নতি করতে হবে, তবে সবচেয়ে বড় ক্ষেত্রগুলির মধ্যে একটি হ’ল তাদের টপ অর্ডার ব্যাটিং ইউনিট। ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের দিক থেকে পৃথ্বী শ’র কাছ থেকে অনেক প্রত্যাশা রয়েছে, তবে এই তরুণ ব্যাটসম্যান এই মরসুমে দুর্দান্ত পারফরম্যান্স করতে ব্যর্থ হয়েছেন, যা ভারতের প্রাক্তন ওপেনার বীরেন্দ্র শেহওয়াগকে হতাশ করেছে।

২০১৮ সালে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে ভারতীয় দলকে নেতৃত্ব দেওয়ার পর থেকে ক্রিকবাজকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে সেহওয়াগ তুলে ধরেন যে শ-এর উন্নতি কতটা খারাপ। সেই টুর্নামেন্টে শ’র সতীর্থ শুভমান গিল একই টাইমলাইনে ভারতের হয়ে তিনটি ফরম্যাটেই খেলছেন।

তিনি বলেন, ‘এ ধরনের শট খেলে সে অনেকবার আউট হয়েছে। কিন্তু ওরও নিজের ভুল থেকে শিক্ষা নেওয়া উচিত। “শুভমান গিলের দিকে তাকান, যিনি তার সাথে অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট খেলেছেন এবং এখন ভারতের হয়ে টেস্ট, ওয়ানডে এবং টি-টোয়েন্টি খেলছেন, কিন্তু শ এখনও আইপিএলে লড়াই করছেন। তাকে এই আইপিএল প্ল্যাটফর্মের সর্বাধিক ব্যবহার করতে হবে এবং রান করতে হবে।

“ঋতুরাজ গায়কওয়াড় আইপিএলমরসুমে ৬০০ রান করেছেন। শুভমান গিলও বড় রান করেন। সুতরাং শ-কে তার আইপিএল স্কোরের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ হতে হবে,” শেহওয়াগ শকে একটি অত্যন্ত প্রয়োজনীয় রিয়েলিটি চেক দিয়েছিলেন।

সাই সুদর্শনের হাফ সেঞ্চুরি ও ডেভিড মিলারের ঝড়ো ক্যামিওর সাহায্যে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) দিল্লি ক্যাপিটালসকে ৬ উইকেটে হারিয়েছে গুজরাট টাইটান্স।

জয়ের জন্য ১৬৩ রান তাড়া করতে নেমে সুদর্শন (৬২) ও তার সঙ্গী বাঁহাতি মিলার (৩১) ৫৬ রানের অপরাজিত জুটি গড়ে দলকে ১১ বল বাকি থাকতেই জয় এনে দেন।