ভারতের কন্ডিশনে স্পিনারদের গুরুত্বের ওপর জোর দিয়ে আসন্ন ২০২৩ বিশ্বকাপ নিয়ে নিজের অন্তর্দৃষ্টি শেয়ার করেছেন পাকিস্তানের সাবেক স্পিনার সাঈদ আজমল।

ক্রিকেট পাকিস্তানকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে আজমল চার জন সম্ভাব্য স্পিনারের কথা তুলে ধরেন, যারা বিশ্বকাপে গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব ফেলতে পারে বলে তিনি বিশ্বাস করেন।

তিনি বলেন, ‘যেহেতু ভারতে বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হচ্ছে, সেখানে স্পিনার থাকা আমাদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের দলে অন্তত দুই থেকে তিনজন স্পিনার থাকা উচিত। ইমাদ ওয়াসিম, মোহাম্মদ নওয়াজ ও উসামা মীর সবাই সাম্প্রতিক সময়ে ভালো বোলিং করছেন। এছাড়াও আমাদের দলে আছেন শাদাব খান, যিনি সহ-অধিনায়কও। সুতরাং, আমি বিশ্বাস করি যে এই চারজনের মধ্যে কমপক্ষে তিনজনের বিশ্বকাপ স্কোয়াডের অংশ হওয়া উচিত।

ওয়ানডে ফরম্যাটে ইমাদ ওয়াসিমের তাৎপর্যের ওপর বিশেষ জোর দেন আজমল। তিনি উল্লেখ করেছিলেন যে পাকিস্তান প্রায়শই নতুন বল নিয়ে চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয় এবং ইমাদকে দলে রাখা একটি মূল্যবান বিকল্প সরবরাহ করবে। তিন থেকে চার ওভার বোলিং করার সামর্থ্য ের কারণে ইমাদ ইনিংসের প্রাথমিক পর্যায়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারেন।

ইমাদ ওয়াসিমের অবশ্যই পাকিস্তানের হয়ে ওয়ানডে খেলা উচিত। তিনি একজন দক্ষ খেলোয়াড় যিনি সাত নম্বরে ব্যাট করলেও ১৪০-এর স্ট্রাইক রেট ধরে রাখতে পারেন। শাহিন ও নাসিম ছাড়া পাকিস্তান প্রায়ই নতুন বল নিয়ে লড়াই করে। এমন পরিস্থিতিতে যখন নাসিম খেলছে না, আমরা দেখেছি যে তাদের নতুন বল সামলানো কঠিন। এই ক্ষেত্রে, ইমাদের উপস্থিতি একটি পার্থক্য তৈরি করতে পারে কারণ সে তিন থেকে চার ওভার বোলিং করতে পারে এবং আমাদের একটি গুরুত্বপূর্ণ বিকল্প সরবরাহ করতে পারে, “আজমল ব্যাখ্যা করেছিলেন।

প্রাক্তন স্পিনার আরও উল্লেখ করেছেন যে ইমাদকে অন্তর্ভুক্ত করার ফলে হারিস রউফ, ওয়াসিম জুনিয়র এবং শাহিন আফ্রিদির মতো খেলোয়াড়রা পুরানো বল দিয়ে দায়িত্ব নিতে পারবেন।

পরে হারিস রউফ, ওয়াসিম জুনিয়র ও শাহীন পুরোনো বল দিয়ে দায়িত্ব নিতে পারেন। এইভাবে, ইমাদ মধ্যবর্তী ওভারগুলিতে সহায়ক ভূমিকা পালন করতে পারে, যা যে কোনও দলের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।