চলতি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে (T20 World Cup 2024) সোমবার ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে বিশ্ব রেকর্ড গড়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা। এই জয়টি টুর্নামেন্টে তাদের টানা সপ্তম জয় চিহ্নিত করেছে, ২০১৪ সালের পর প্রথমবারের মতো সেমিফাইনালে তাদের জায়গা সুরক্ষিত করেছে।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে এই সাতটি জয় কোনো দলের সর্বোচ্চ।

পুরুষদের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ জয়:
৭. ২০২৪ দক্ষিণ আফ্রিকা
৬. ২০০৯ শ্রীলঙ্কা
৬. ২০১০ অস্ট্রেলিয়া
৬. ২০২১ সালে অস্ট্রেলিয়া

অ্যান্টিগার নর্থ সাউন্ডের স্যার ভিভিয়ান রিচার্ডস স্টেডিয়ামে এক রোমাঞ্চকর প্রতিযোগিতায় দক্ষিণ আফ্রিকা ডিএলএস পদ্ধতিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে তিন উইকেটে পরাজিত করে। বৃষ্টির কারণে ১৭ ওভারে ১২৩ রানের সংশোধিত লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে দক্ষিণ আফ্রিকার স্কোর ১৬.১ ওভারে ১২৫-৭।

মার্কো জানসেন ১৪ বলে ২১ রানের গুরুত্বপূর্ণ অপরাজিত ক্যামিও খেলেন, যার মধ্যে শেষ ওভারের প্রথম বলে একটি ছক্কা ছিল যখন পাঁচ রান প্রয়োজন ছিল। এছাড়া ত্রিস্তান স্টাবস (২৭ বলে ২৯) ও হেনরিখ ক্লাসেন (১০ বলে ২২) গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেন।

এক পর্যায়ে ৭৭-৩ থাকলেও দ্রুত উইকেট তুলে নিয়ে খেলায় টিকে থাকতে থাকে উইন্ডিজ। তবে, দক্ষিণ আফ্রিকার দেরিতে চার্জ তাদের জয় নিশ্চিত করে এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজকে টুর্নামেন্ট থেকে ছিটকে দেয়। রোস্টন চেজ স্বাগতিক দলের হয়ে চার ওভারে ১২ রানে ৩ উইকেট নিয়ে স্ট্যান্ডআউট বোলার ছিলেন।

এর আগে টস জিতে বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয়ার পর দক্ষিণ আফ্রিকা তাদের ২০ ওভারে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ১৩৫-৮ রানে আটকে দেয়। পরে বৃষ্টির কারণে দক্ষিণ আফ্রিকার দুই ওভারে ১৫-২ হয়ে গেলে ১৭ ওভারে লক্ষ্যমাত্রা ১২৩ রানে নামিয়ে আনা হয়।

দক্ষিণ আফ্রিকার স্পিনার এইডেন মার্করাম, তাবরাইজ শামসি ও কেশব মহারাজ ১২ ওভারে মাত্র ৭৯ রান দিয়ে পাঁচ উইকেট তুলে নিয়ে কার্যকরভাবে খেলা নিয়ন্ত্রণ করেন। চার ওভারে ২৭ রানে ৩ উইকেট নিয়ে বোলারদের মধ্যে শামসি বাছাই করেন।

আমি ঘামছি, এবং আমি এমনকি সেখানে ছিল না। সেখানে বেশ স্নায়বিক তবে এটিই এই বিশ্বকাপের থিম হয়ে দাঁড়িয়েছে। ম্যাচসেরার পুরস্কার পাওয়া শামসি বলেন, ‘আমরা জয়ের পথ খুঁজছিলাম এবং আজকের রাতটা ছিল অন্যতম। “আমাদের সমর্থকরা হয়তো আরও বড় জয় চাইবে, কিন্তু এ ধরনের মুহূর্ত আমাদের আটকে রাখে। এমন চাপের মুহূর্ত কাটিয়ে ওঠা আমাদের ভালো অবস্থানে রাখে।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে ১১ ও ১৪ রানে আউট হওয়া রোস্টন চেজ সর্বোচ্চ ৪২ বলে ৫২ রান করেন।